সুখী জীবন প্রেম করে বিয়ে করে!




সুখী জীবন

ভালোবেসে বিয়ে করার পর সবার জীবনে সুখ আসে নাহ। অনেকের জীবনে অনেক কষ্ট নেমে আসে। আবার অনেকের জীবনে রচনা হয় বিচ্ছেদের বিশাল এক রচনা। কিন্তু কারোর জীবন হয় অনেক সুখের। মৌ আর রাশেদের জীবনেও ভালোবাসা এসেছিলো। আর তাদের ভালোবাসার শেষ পরিনতি ছিলো বিয়ে। তারা বিয়ে করে অনেক সুখেই দিন কাটাচ্ছিল। যদিও তাদের সেরকম আর্থিক অবস্থা ছিলো নাহ। রাশেদ একটা ছোটো চাকরি করে। আর মৌ একটা স্কুলে পড়ায়।

আর কয়েকটা টিউশনি  করত। এভাবে একটু একটু করে তাদের  ছোট্ট সংসারটা সাজিয়ে তুলছিলো। তাদের জীবনে ঝগড়া ছিলো নাহ। কিন্তু মান অভিমান ছিলো। রাশেদ তার অফিসের কাজ শেষ করে টেক্সি চালাতো কিন্তু মৌ সেটা জানতো নাহ। জানলে সে কষ্ট পাবে তাই সে জানায় নি মৌকে। তাদের জীবন ভালোই চলছিলো। এর মধ্যে হঠাৎ একদিন রাশেদ জানতে পারে তাদের মধ্যে তৃতীয় একজন আসতে চলেছে।

কিন্তু রাশেদের চাকরিটা অনেক ছোট ছিলো এতে দুজনের ভালোভাবে চললেও ৩ জনের অনেক কষ্ট হয়ে যাবে। এর মধ্যে রাশেদ কয়েক জায়গায় চাকরির পরিক্ষা দিয়েছে। এখনো ফলাফল আসেনি। দুজনের মধ্যে আনন্দ থাকলেও তারা অনেক টেনশনে পড়ে গেছিলো। দু'জনের কেউই এখন বাচ্চাটার জন্য তৈরি ছিলো নাহ।

তারা ভাবলো তারা Abortion করে ফেলবে। কিন্তু কাকতালীয় ভাবে তারা রুম থেকে বেরোনোর আগে দরজায় ধাক্কা পড়লো। কে এলো বলে দরজা খুলতেই দেখে পোস্টমাস্টার কাকা। সে একটা চিঠি দিলো। দিয়ে সে চলে গেলো। চিঠিটা খুলে দেখে সেটায় লেখা রাশেদকে একটা অনেক বড় প্রাইভেট কোম্পানি থেকে ডাকা হয়েছে।

রাশেদ  নিজের চোখকে বিশ্বাস করতে পারছিলো নাহ। মৌকে সে ডাকে আর সবটা বলে। দুজনেই অনেক খুশি হল। আর তাদের পরিবারটা সুখি পরিবার হয়েই সারাজীবন রয়ে গেলো।

obohelajibonনুসরাত জাহান

Post a Comment

0 Comments