না পাওয়া ভালোবাসা অনেক কষ্ট



না পাওয়া ভালোবাসা

ভালোবাসা না পাওয়ার যে কি তীব্র যন্ত্রনা তা শুধু যারা ভালোবাসে তারাই জানে। ভালোবাসা ছাড়া বেচে থাকার সাহস খুব কম ছেলে মেয়েই পারে। খুব ভালোবাসার পর একটা মানুষকে শুধু পরিবারের জন্য ছেড়ে দিলে সেটার চেয়ে বেশি দুঃখ আর কি হতে পারে। মেহেদি আর মিম এর সম্পর্কের শুরু হয়েছিলো তাদের কলেজ লাইফের শেষে যখন তারা তাদের উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রস্তুতি নিতে কোচিং সেন্টারে ভর্তি হয়েছিল। তারপর একসাথে প্রায় অনেক গুলি বছর পার করে দিলো একসাথে। 

মেহেদি মিমকে ভালোবাসে। মেহেদি নিজের পরিবারের কাছে সব জানালেও মিম কখনো পারেনি জানাতে। সে পারেনি তার পরিবারকে বলতে সে ভালোবাসে মেহেদিকে  কিন্তু অনেক ভালোবাসে সে মেহেদিকে। এভাবে তাদের আরও কিছুদিন কেটে গেলো। একদিন খুব সাহস করে মিম তার বাবাকে বলতে গিয়েছিলো।সে বলেছিলো সে মেহেদিকে ভালোবাসে। কিন্তু তার বাবা তার কোনো কথাই শুনলো নাহ। মিমের বাবা মিম এর বিয়ে ঠিক করে ফেলল।

মিম তার পরিবারকেও ছাড়তে পারবে নাহ আবার সে মেহেদিকেও ভালোবাসে। কি করবে বুঝে উঠতে পারছিলো নাহ। তার বাবার কথাই তার জীবনে শেষ কথা। সে তার বাবাকেও অনেক ভালোবাসে। মিম মেহেদিকে সব জানায়। মেহেদি বাকরুদ্ধ হয়ে যায়। আর সে কিছুক্ষন চুপ করে থাকার পর মিমকে বুঝায় তুমি বিয়ে করে নেও এভাবে আমার জন্য ভেবে কষ্ট পেও নাহ। তোমার সুখটাই আমার সুখ। মিম সবটা বুঝতে পারে।

আর সে বলে মেহেদি আমাকে পারলে ক্ষমা করে দিও। আমার জন্যই আমাদের সম্পর্ক আজ ইতি হয়ে গেলো। এই কথা বলে মিম কাদতে কাদতে চলে গেলো। এর মধ্যে হঠাৎ একদিন খবর পেলো মিমের বিয়ে হয়ে গেছে। আর সেই কথা শুনে মেহেদি দেশের বাইরে চলে গেলো। এর পরে মিম দেশেই নিজের স্বামী নিয়ে ভালোই আছে। আর মেহেদি বিদেশে গিয়ে আর কখনো ফিরে আসেনি হয়তো সেখানেই সব গুছিয়ে নিয়েছে নিজের মতো করে।

obohelajibon/নুসরাত জাহান

Post a Comment

0 Comments