কঠিন সময়ে কি করবেন? এই কথা গুলো মনে রাখো!



কঠিন সময়ে কি করবেন? এই কথা গুলো মনে রাখো!

সময় এবং নিজের আপনজন যখন একসাথে আঘাত দেয়, তখন মানুষ শুধু বাইরে থেকে নয় ভেতর থেকেও পাথর হয়ে যায়। তাই তোমার আপন জনদের সময় খারাপ থাকলে, তুমি অন্তত তাদের পাশে থেকো, আর আমরা সব সময় কারোর খারাপ ব্যবহার এবং খারাপ অতীতকে চিন্তা করে করে কষ্ট পাই। আমরা এটা ভুলে যাই যে তেতো শুধু চিবিয়ে খাওয়া যায় না। তা সোজাসুজি গিলে ফেলতে হয়।

এর মানে হলো জীবনে আসা অপমান অসফলতা কষ্টদায়ক অতীতকে তেতো ওষুধের মতো গিলে ফেলা উচিত। সেগুলো যদি আমরা চিবোতে থাকি, অর্থাৎ সারাক্ষণ সেগুলো নিয়ে ভাবতে থাকি, তাহলে আমাদের জীবনে সবসময় তিক্ততায় ভরে থাকবে। খারাপ সময় কারোর সাহায্য সবসময় ভেবে চিনতে চাইবে। কারণ খারাপ সময় বেশিদিন থাকে না। কিন্তু সাহায্যের ঋণ সারাজীবন বয়ে বেড়াতে হয়।

ছবিতে কাউকে হাসতে দেখে ভেবোনা যে তার জীবনে শুধু সুখ আর খুশি আছে।কারন  তুমি নিজেও সবচেয়ে হাসিখুশি ফটোটাই ফেসবুকে  আপলোড  করো। আর দুঃখ বেদনা এবং কান্না গুলো তোমার হাসির আড়ালে চাপাই থেকে যায়। যখন মানুষের তোমার কাছ থেকে চাহিদা বদলে যায়, তখন সেই মানুষ গুলো ও বদলে যায়। আর এটাই সমাজের কঠিন সত্য। তাই পরিবর্তনের জন্য সবসময় নিজেকে প্রস্তুত রাখো। তোমার সামনে আসা সব সুযোগের লাভ ওঠাও। কিন্তু কখনো কারো অসহায় অবস্থা লাভ উঠিও না। কারণ তুমি নিজেও কখনো এটা চাইবে না, যে কেউ তোমার অসহায় অবস্থার লাভ উঠাক।

আজকাল মানুষের গুনের থেকে তার রূপ রং এবং পয়সার কদর বেশি। কিন্তু একটা চরম সত্য হলো, এই রূপ রং এবং পয়সা, আমাদের যেকোনো সময় সাত ছেড়ে চলে যেতে পারে। কিন্তু শুধু মাএ যে আমাদের সাথে হাতে হাত রেখে শেস পর্যন্ত থেকে যাবে, সে হলো আমাদের ভেতরকার গুন। পয়সা শুধু মাত্র আমাদের এটা বলে। যদি তুমি আজকে আমাকে বাঁচাও, কালকে তোমার বিপদের সময় আমি তোমাকে বাঁচাবো।

এই সমাজ সত্যি খুব অদ্ভুত। যখন তুমি অসফল হবে, তখন যারা তোমাকে দেখে হাসবে তোমাকে অপমান করবে, তারাই তুমি সফল হলে তোমার সফলতার জন্য হিংসা করবে। তাই বিশ্বাস সবসময় নিজের উপর রাখো আর অন্যেরা তোমার ব্যাপারে কি ভাবলো তা ভুলে যাও। আমি সব জানি। এই চিন্তা ভাবনায় আমাদের কুন ব্যাঙ্ক করে রেখে দেয়। কুয়ো থেকে বেরিয়ে পৃথিবীর সুন্দর্য্য দেখতে হলে, আমি সব জানি এই ভাবনা বদলে। আমার অনেক কিছু জানা বাকি আছে। এই ভাবনা আমাদের নিজেদের মনে ঢুকিয়ে নিতে হবে।

এই নিষ্ঠুর সমাজে খুশি থাকতে হলে মূল মন্ত্র একটাই। প্রত্যাশা শুধু নিজের কাছেই রেখো। অন্য কারো কাছে নয়। একটা গরিব শিশু ছেঁড়া একটা জুতো পরে ফুটবল খেলছিল। তা দেখে একজন ব্যক্তির খুব খারাপ লাগলো আর সে বাজার থেকে একটা নতুন জুতো কিনে এনে তাকে দিয়ে বললো, তুমি এটা পরে খেলো। ছেলেটা খুব খুশির সাথে পুরনো জুতোটা খুলে নতুন জুতোটা পড়ে নিলো এবং সরল মনে সেই ব্যক্তি কে জিজ্ঞেস করল। আপনি কি ফেরেসতা? ব্যক্তিটি বললো না তো! তখন ছেলেটা বলল, তাহলে আপনি নিশ্চয় ফেরেসতার বন্ধু হবেন।

কারণ কাল রাতে আমি আল্লাহ তায়ালার কাছে প্রার্থনা করেছিলাম। যে আমার এই ছেড়া জুতো টা পড়ে খেলতে খুব কষ্ট হয়। তুমি আমাকে একটা নতুন জুতো এনে দাও। আর আজকে আপনি আমাকে নতুন জুতো টা দিলেন। সরল ওই ছেলেটির কথাটা শুনে লোকটা চোখে জল চলে এলো। সে কখনো ভাবিনি যে ফেরেসতার বন্ধু হওয়া এতটা সহজ। তাই সমাজ যতই নিষ্ঠুর হোক। আমরা যদি নিজেদের ভেতর কাইন্ডনেস সিমপেথি এবং সাহায্য করার  মানসিকতা রাখি। তাহলে আমরা অনেক অসহায় মানুষের মুখের হাসি এবং তাদের একটা অন্তত ভালো দিনের কারণ হতে পারি।

©obohelajibon/অবহেলা জীবন

Post a Comment

0 Comments