নতুন বছর 2020 কি কাজটি করবেন? সাকসেসফুল হওয়ার জন্য!



নতুন বছর 2020 কিভাবে সফল হবেন? কি কাজটি করবেন সাকসেসফুল হওয়ার জন্য!

২০২০ সালের পহেলা জানুয়ারি আমরা প্রায় প্রত্যেকেই কিছু না কিছু সংকল্প, কিছু না কিছু রেজুলেশন নিয়েছি। এই বছরে নিজেকে সফল বানাতে। এই ২০২০ এ নিজের জীবনকে বদলে ফেলতে। কেউ তিনটি রেজুলেশন নিয়েছি কেউবা পাঁচটি রেজুলেশন নিয়েছি কেউবা আরো বেশি। কিন্তু আজকে আমি আপনাদের শুধু একটি মাত্র সংকল্প বা রেজুলেশন এই ২০২০ এ নেওয়ার কথা বলবো। যেটা আপনার জীবনকে ২০২০ শেষ হতে না হতেই পরিবর্তন করে দিবে।

এই একটা কাজ তাও আবার সামান্য পরিমানে করতে পারলেই ১০০ টা কাজের সমান রেসাল্ট পাওয়া যাবে। সেই একটা কাজ হলো নিজের উপর কাজ করার সংকল্প। সেল্ফ ইম্প্রুভমেন্টের রেজুলেশন।আপনি যদি এই মুহূর্তে যে পজিশনে দাড়িয়ে আছেন সেখান থেকে নিজেকে অল্প অল্প করে ইম্প্রভমেন্ট সারা বছর ধরে করতে থাকেন, তাহলে বছরের শেষে সেই সব কিছু একুমুলেট হয়ে কম্পাউন্ডিং ইফেক্ট ক্রেট করবে এবং আপনার জীবনের সেই সব কিছু কয়েক গুন ভাল রেসাল্ট রুপে ফিরে আসবে।

পাঁচটা দশটা রেজুলেশন কমপ্লিট করার চিনতাও আপনার থাকবে না। আর ২০২০ শেষ হতে না হতেই আপনি নিজের মধ্যে একটা সেল্ফ ইম্প্রুভ দেখতে পাবেন। আর এই পৃথিবীর প্রায় সমস্ত সফল মানুষ সেল্ফ ইম্প্রুভমেন্টকে তাদের সফলতার পেছনের একটি বড় কারণ বলেছেন। সেল্ফ ইম্প্রুভমেন্টের মাধ্যমে আমরা নিজের জীবনকে কীভাবে বদলে ফেলতে পারি তার কয়েকটি টিপস এখন আমি আপনাদের কাছে শেয়ার করবো। তো নিজেকে ইম্প্রুভ করার জন্য আপনাদের যে যে জায়গা গুলোতে ফোকাস করবেন তা হলো:

১: নিজেকে ইম্প্রুভ করার ফাস্ট স্টেপ হিসেবে আমরা নিজের কমিউনিকেশন স্কিলের উপর কাজ করতে পারি। কারণ আপনি স্টুডেন্ট হোন বা অন্য যে কোন কাজ করুন আপনার কমিউনিকেশন স্কিল যত ভাল হবে লাইফ সাকছেসফুল হওয়ার চান্স ততটাই বেড়ে যাবে।তবে হ্যা অনেকেই হইতো বেটার স্কিল মানে ইংরেজি বলা বা পারাকেই শুধু ভাবছেন।

কিন্তু ইংরেজি বলা বা লেখা ছাড়াও কমিউনিকেশন স্কিলের মধ্যে অনেক কিছু পড়ে।যেমন আপনি সামনের মানুষের সাথে কিভাবে কথা বলছেন, আপনার বডি লেংগুয়েজ কেমন থাকছে, আর আপনি নিজের কথা সামনের মানুষকে কতটা সহজ ভাবে বুঝাতে পারছেন সেই সব কিছু কমিউনিকেশনের পার্ট। আর এগুলো যতটা বেটার করা যাবে আমাদের জন্য তত বেশি ভাল হবে।

২: আমরা মনের দিক দিয়ে যতটা শক্তিশালী হবো আমাদের আত্মবিশ্বাস যত বেশি হবে, আমরা নিজের মাইন্ডকে যত ভাল ভাবে কন্ট্রোল করতে পারবো, আমাদের যেকোন কাজে সফল হওয়ার চান্স তত বেশি বেড়ে যাবে।মাইন্ডের উপর কাজ করার জন্য আমরা মেডিটেশন করতে পারি।নিজেকে নিজে পজিটিভ এফিরম্যাশন দিতে পারি পজিটিভ মানুষের সাথে মিশতে পারি পজিটিভ জিনিস দেখতে পারি,পজিটিভ কিছু পড়তে পারি ইত্যাদি।

৩: চেষ্টা করুন প্রতিদিন সকালে অন্তত পক্ষে ৩০ মিনিট নিজের উপর কাজ করার জন্য রাখতে।এর কারণ সকালে ঘুম থেকে উঠার পর আমাদের মন সব থেকে বেশি ভাল থাকে এবং আমাদের এনার্জির পরিমান বেশি থাকে।তাই ঘুম থেকে উঠার ঠিক পরের সবচেয়ে মূল্যবান সময়টা নিজের উপর ইনভেস্ট করুন। এই ইনভেস্টের রিটার্ন বহু গুন ফেরত পাওয়া যাবে।যদি আপনার সকালের রুটিনে ৩০ মিনিট পাওয়া না যায়।

তাহলে এখন থেকে প্রতিদিন নিজের ঘুম থেকে উঠার সময়কে মাত্র ৫ মিনিট করে এগিয়ে দিন।আমি প্রথমেই বলেছি নিজেকে ইম্প্রুভ করার জন্য সামান্য কিছু পরিবর্তন দরকার। এই ছোট্ট চেঞ্জএর মাধ্যমে কিছু দিন পরেই আপনার হাতে প্রতিদিন সকালে এক্সট্রা ৩০ মিনিট সময় থাকবে।এই ৩০ মিনিট নিজেকে পরিবর্তনের জন্য কাজে লাগান।বছরের শেষে নিজের এক বেটার সেল্ফকে খুজে পাবেন।

৪: প্লানিং সেল্ফ ইম্প্রুভমেন্টের একটি বড় পার্ট।নিজের লক্ষ্য পর্যন্ত কীভাবে পৌছাবেন সেটা প্লান করে কাজ করা খুব ইম্পরটেন্ট। সে পড়াশোনার ক্ষেত্রে হোক বা অন্য কোন কাজে হোক।প্রোপার প্লানিং না থাকলে আমাদের অনেক সময় নষ্ট হয়ে যায় এবং মাঝ রাস্তায় গিয়ে পথ হাড়িয়ে ফেলি, কি করবো বুঝতে পারি না।সাকসেসকে এগিয়ে আনতে চাইলে একটা লক্ষ্য সেট করার পর প্রোপার প্লানিং বানিয়ে নেওয়া আমাদের উচিৎ।

৫: নিজেকে ইম্প্রুভ করতে চাইলে প্রতিদিন আমাদের কাজের ফিডব্যাক অন্যদের কাছ থেকে নেওয়া উচিৎ। কারণ আমরা সব সময় কি ভুল করছি তা ধরতে পারি না। আর ভুল কে সাথে নিয়ে এগিয়ে চলা মানে নিজের সাথে এক প্রকার বিষ বয়ে বেড়ানো। আর যারা আমাদের ভুল গুলো ধরিয়ে দেয়। তারা আমাদের সফল হওয়ার দিকে এক ধাপ আগিয়ে দেয়।

আমাদের মাইন্ডকে সব সময় কিছু শিখার জন্য ওপেন রাখা দরকার এবং ফিডব্যাক গ্রহন করার সময় নিজের ইগুকে দুরে সরিয়ে রাখা দরকার। এগুলো ছাড়াও সেল্ফ ইম্প্রুভমেন্টের অনেক টিপস আছে কিন্তু সব বলে এখন শেষ করা যাবে না। তাই আপনারা কমেন্ট করে জানান যে আপনারা নিজেকে ইম্প্রুভ করার জন্য আর কোন কোন জায়গা ফোকাস করতে চান?

obohelajibon/অবহেলা জীবন

Post a Comment

0 Comments