Student লাইফ এখন থেকে আমি পড়া লেখা করবো! বুঝে পড়ার উপায় (অনুপ্রেরণা)


Student - study লাইফ এখন থেকে আমি পড়া লেখা করবো! দেখি আমাকে কে আটকায়

Student লাইফ এখন থেকে আমি পড়া লেখা করবো! দেখি আমাকে কে আটকায়

কেন আমার সাথেই শুধু এই রকম হয়। যখন ঘুরি ফিরি আড্ডা মারি, টিভি দেখি তখনতো অলসতা আসেনা। তখনতো ঘুম পায়না। যখন পাবজিতে চিকেন ডিনার পাওয়ার জেদ চেপে যায়। তখনতো ফুল ফোকাস থাকে। কিন্তূ পড়তে বসলেই সব ফোকাস যেন কোথায় হারিয়ে যায়। যত অলসতা যেন আমার শরীরেই এসে চেপে বসে। রাতে ২ টা অবদি পযর্ন্ত জেগে মোবাইল ঘাটার সময় চোখে একটুও ঘুম আসতে চায়না। 

আর টেক্সট বুকের দু এক পাতা পড়তে না পড়তেই পৃথিবীর সব ঘুম যেন আমার চোখেই নেমে আসে। প্রত্যেক পদে পদে আমার জীবনে যেন শুধু ফেল ইয়র আর ফেল ইয়র। আমি চাই ভাল ভাবে পড়াশুনা করে একজন সফল মানুষ হতে। কিন্তু আমার সফলতার রাস্তায় যদি এত বাধা আসে। ডিসট্রাকসন যদি আমাকে নিজের গোলাম বানিয়ে রাখে। তাহলে আর আমারতো হাল ছেড়ে দেওয়া ছাড়া আর কোন উপায় থাকবেনা। বার বার এত চেষ্টা করার পড়েও। 

এত মোটিভিসোনাল লেখা/ভিড়িও দেখার পরেও যদি আমি পড়াশুনাতে কনসেনটেট করতে না পারি তাহলেতো আমাকে এটাই মেনে নিতে হবে আমার দারা মনে হয় পড়াশুনা হবেনা। আমি মনে হয় সফল হওয়ার জন্য জনমাইনি আমি মনে হয় (টোটাল ফেল ইউর) কি ভেবেছিলে? এরকমি কিছু একটা বলবো না বস। এত সহজে জীবনের কাছে আমি হার মানছিনা। এত সহজে অলসতার কাছে আমি হার মানছিনা। এত সহজে আমি আমার চঞ্চল মনের কাছে হার মানছিনা। আমার এই অলস আর চঞ্চল মনটাকে শুধু একটা কথাই বলতে চাই। 

যত পারো চেষ্টা করো আমাকে আটকানোর। তোমাকে সফল আমি হতে দিচ্ছিনা। এতদিন তুমি যুদ্ধে জিতে এসেছো শুধু সাধারণ মানুষদের সাথে। এবার তুমি এসে পড়েছো আমার মত পাগল আর জেদির হাতে। তুলে দাও যত ইচ্ছে অলসতার দেওয়াল আমার চলার পথে। প্রতিটা দেওয়াল তোমার চোখের সামনেই ভাংবো। আমি আমার পরিশ্রমের হাতে। তোমার ষড়যন্ত্রের শিকার সাধারণেরা হতে পারে। কিন্তু জেনে রেখো। 

সব ষড়যন্ত্র একজন জেদির কাছেই এসে হারে। প্রতি পদে কঠিন বানাও আমার রাস্তা দাও যত ইচ্ছে ডিস্ট্রাকসন। আমিও দেখিয়ে দেব শত ডিস্ট্রাকসনের মাঝেও করা যায় ফুল কনট্রেসন। আমার পড়াশুনার পথে আর বাধা হয়ে দাড়াতে পারবেনা কোন এট্রাকসন। কারন বাবা মায়ের চোখের সপ্ন আর মুখের হাসি এখন আমার সবচেয়ে বড় মোটিভেষন। যতবার তুমি চেষ্টা করবে কম্ফোর্ট জোনের দড়ি দিয়ে আমাকে বেধে রাখার। ততবারি তুমি নিরাস হবে। কারন আমার সপ্নের টান এতটাই মজবুত যে তার ক্ষমতা আছে এরকম হাজারটা দড়ি ছিড়ে ফেলার।

যতবার চেষ্টা করবে এই চঞ্চল মনকে পড়াশুনা থেকে দুরে নিয়ে যাওয়ার। ততবারি তুমি বিফল হবে। কারন তুমি জাননা আমার ইচ্ছাশক্তির কতটা পাওয়ার। মোবাইল টিভি সোসাল মিডিয়া দিয়ে তুমি আর আমার ফোকাস নরাতে পারবেনা। কারন আমি জেনে গেছি আজকের এই টেম্পরারি প্লেসের দেবে আমাকে সারাজীবন এর পেইন আর আজকের অল্প কিছুদিনের জন্য ফুল ফোকাস আর কনসেন্ট্রেসনের সাথে পড়াশুনা দেবে সারাজীবন এর গেইন। 

যেমন ভাবে এতদিন থাকতো পাবজিতে চিকেন ডিনার আনার জেদ। সেই একি রকম জেদি করবো আমি জীবনের সব লক্ষ্য ভেদ। যা যা সপ্ন দেখেছি একদিন তা সব পুরন করে দেখাবো। অলসতা আর ডিস্ট্রেকসনকে পায়ের তলায় রেখে। আমি আমার সফলতার পতাকা ওড়াবো। অনেক হয়েছে অলসতার গোলামি। পারলে আবার করিয়ে দেখাও, আজ থেকে আমি পড়বো দম থাকলে আটকে দেখাও। 

এনে দাও সামনে যত ইচ্ছা বাধা। বার বার আমাকে মাটিতে ফেলে দাও। উঠে দাড়িয়ে আবার এগিয়ে যাবো। দম থাকলে আটকে দেখাও। ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করো আমার সব ফোকাস। পারলে আরো ডিস্ট্রাকসন দাও। বাবা মায়ের মুখের হাসির জন্য পড়বো। দম থাকলে আটকে দেখাও। বছরের ৬ মাস নষ্ট করে দিয়েছো। পারলে আর একটা দিনও নষ্ট করে দেখাও। আজ এখন থেকেই আমি পড়বো। দম থাকলে আটকে দেখাও। আজ এখন থেকেই আমি পড়বো। দম থাকলে আটকে দেখাও।

©obohelajibon-blog/অবহেলা জীবন

Tags: Motivational/অনুপ্রেরণা
কিভাবে পড়ালেখায় ভালো করা যায়, বুঝে পড়ার উপায়, পড়ায় মনোনিবেশ করার উপায়, কম সময়ে বেশি পড়ার উপায়, পড়াশোনায় মনোযোগি হওয়ার দোয়া, পড়াশোনায় মনোযোগ দিবো কিভাবে, পড়াশোনার মন্ত্র, পড়াশুনার টিপস

Post a Comment

0 Comments