আপনার ব্রেইনকে কে কন্ট্রোল করছে? আপনার সময়কে কোথায় ইনভেস্ট করছেন।


আপনার ব্রেইনকে কে কন্ট্রোল করছে? আপনার সময়কে কোথায় ইনভেস্ট করেছেন।

আপনার ব্রেইনকে কে কন্ট্রোল করছে? আপনার সময়কে কোথায় ইনভেস্ট করছেন।

আমরা কখনই বড় কোন কিছু করতে পারবো না। যকি ছোট ছোট কিছু জিনিসেই আমরা Distract হয়ে যেতে থাকি।

ভাই আর কতদিন আজকের কাজগুলো কালকের জন্য জমিয়ে রাখবে। আর কতদিন পাবজি তে কয়েকটা যুদ্ধ জিতে, নিজেকে ভীষণ বড় যোদ্ধা ভাবতে থাকবে। কখনো ভালো করে নিজের অভ্যাসগুলোর দিকে তাকিয়ে দেখেছ। যে সেগুলো তোমার ভবিষ্যৎকে কোথায় নিয়ে যাচ্ছে।

তুমি কখনো হিসাব করে দেখেছো, যে সারা দিনে মোট কত ঘন্টা টাইম প্রতিদিন তুমি তোমার মোবাইলের উপর ইনভেস্ট করেছো। যদি এতদিন ওই টাইম গুলো, তুমি অন্য কোথাও ইনভেস্ট করতে। নতুন কিছু শেখার জন্য, নতুন কিছু জানার জন্য, তাহলে অবশ্যই, সেগুলো তোমার জীবনে কিছু না কিছু ভ্যালু অ্যাড করতো।

এই Extra সময় গুলোকে তুমি এভাবে নষ্ট হয়ে যেতে দিও না ভাই। এগুলোকে কিছু না কিছু কাজে লাগাও, এইসব বাহানা গুলো দেওয়া বন্ধ করো। যে আজ না কাল থেকে শুরু করবো, আজ টাইম কিভাবে কেটে গেলো, বুঝতেই পারলাম না, কাল থেকে অবশ্যই ফ্রেশ মাইন্ড এর সাথে শুরু করব।

ভাই অনেকটাই সময় কেটে গিয়েছে বাহানা দিতে দিতে, এটাকে আজ বন্ধ না করলে গোটা জীবনটাই কেটে যাবে বাহানা দিতে দিতে। তোমার কাছে কি করার মতন সত্যি কি কিছু নেই, যে তুমি সারাদিন মোবাইলে টাইম পাস করতে ব্যস্ত থাকো। আচ্ছা টাইম পাস না, তুমি ভীষণ ইম্পর্টেন্ট কিছু কাজ করো মোবাইলে। কিন্তু তুমি কি আমাকে বলতে পারবে, যে ওই কাজগুলো করার মাধ্যমে, তোমার জীবনে এই পর্যন্ত কি কি উন্নতি এসছে।

না পারবে না, কারণ মোবাইলে ইম্পর্টেন্ট কাজ যদি তোমার দুটো থাকে, তাহলে তার সাথে আরো দশটা আন ইম্পর্টেন্ট কাজও তোমার মোবাইলে ভরা আছে। টাইম পাস ছাড়া, যেগুলোর আর কোন ভ্যালু নেই,

কি করছো ভাই, তুমি তোমার মূল্যবান সময় গুলোকে নিয়ে। নিজেকে দেখ একবার, একটা ছোট্র জিনিস, তোমাকে কন্ট্রোল করে যাচ্ছে প্রতিদিন, তোমার সময় কে কন্ট্রোল করছে, তোমার এনার্জি কে কন্ট্রোল করছে।

মোবাইলে একটা নোটিফিকেশন আসে আর তুমি সব কিছু ছেড়ে দিয়ে, আগে সেটা চেক করতে চলে যাও, এই একটা ছোট্র জিনিস তোমার জীবনের বড় বড় জিনিস কে কন্ট্রোল করছে, তোমার মাইন্ড কন্ট্রোল করছে।

দুপুরে খাওয়ার সময় কন্ট্রোল করছে, রাতে ঘুমানোর সময় কন্ট্রোল করছে। এককথায় তোমার ইমোশনকে কন্ট্রোল করছে, এটা কে কিনে, তুমি এটারই গোলাম হয়ে গিয়েছো, যদি বিশ্বাস না হয়, একদিন মোবাইল ছাড়া দিন কাটিয়ে দেখো। ঘন্টার পর ঘন্টা মোবাইল দেখার সাইড ইফেক্ট কি, সেটা তুমি এই মোবাইলেই সার্চ করে একবার দেখো, তাহলেই বুঝতে পেরে যাবে তোমার প্রিয় মোবাইলের ওকাত।

আমি তোমাকে এটা বলছি না, যে তুমি মোবাইল ব্যবহার করোনা, বা এটাকে ভেঙেচুরে দাও। আমি তোমাকে এতোটুকো বোঝাতে চাইছি, যে এটা ব্যবহার করার একটা লিমিটেশন আছে। এবং তুমি এটাকে ব্যবহার করো, নাকি এটা তোমাকে ব্যবহার করুক, সামান্য কয়টা বাজে দেখতে গিয়ে, যদি আধাঘন্টা তুমি এরমধ্যে হারিয়ে যাও।


৫ মিনিট একটু টাইম পাস করবো ভেবে, এক ঘন্টা পর যদি তুমি মোবাইল রাখো। তাহলে বুঝে নিও তুমি মোবাইল ব্যবহার করছো না, মোবাইল তোমাকে ব্যবহার করছে। তুমি একে চালাচ্ছো না, এ তোমাকে চালাচ্ছে, আমি এরকম অনেক ছেলে/মেয়েকে দেখেছি, যাদের সকাল থেকে রাত কেটে যায়, সের্ফ একটা গেম এর মধ্যেই।

তাহলে একবার ভেবে দেখো, এই মোবাইল কিভাবে তাদের ব্রেন ওয়াশ করেছে, বা এই মোবাইল কতটা একটা মানুষকে নেগেটিভ প্রোগ্রাম করতে পারে, কিন্তু এভাবে কতদিন চলবে, সারা জীবন কি এভাবে কাটিয়ে দেবে।

তোমার জীবনের প্রয়োজন গুলো কি, এই মোবাইল মিটিয়ে দেবে, আজ বাবা-মা আছে তাই সমস্ত প্রয়োজন খুব সহজেই মিটে যাচ্ছে। কিন্তু যেদিন নিজেকে কিছু করতে হবে, সেদিন কি সাহায্য করবে তোমাকে এই মোবাইল? আর যদি না করে তাহলে তাদের কাছে সাহায্য চেয়ে দেখো?

যাদেরকে লাইক করতে গিয়ে, তুমি ঘন্টার পর ঘন্টা সময় কাটিয়েছো, সেদিন দেখবে কেউ তোমার পাশে আসছে না। আর সেদিন তুমি বুঝতে পারবে, যে এই দুনিয়ার রেসে তুমি ঠিক কতটা পিছিয়ে আছো। কিন্তু এখনো এসব কিছুই হয়নি, এখনো তোমার হাতে সময় আছে, নিজের সময়কে সঠিক জায়গায়, invest করো।

প্রত্যেকটি জিনিসের একটি লিমিটেশন থাকে, সেটাকে Cross করলেই তার সাইড ইফেক্ট অবশ্যই তোমার সামনে আসবে। আমি তোমাকে এটা বলছি না, যে মোবাইল ব্যবহার কম করলেই তুমি অনেক কিছু করে ফেলবে, কিন্তু আমি তোমাকে এটা গ্যারান্টি দিচ্ছি যে সেটা কন্ট্রোল করলে, বিগত কালকের থেকে আগামী কাল, তুমি অনেক গুলো কাজ বেশী করতে পারবে।

motivation inspiration bangla quote pic obohelalife blog

জীবন তোমাকে সকল সময় একটি সুযোগ দেয়, আর ওই সুযোগ টির নাম পরিবর্তন!

জীবনের দেওয়া এই সুযোগটিকে, তুমি কি ব্যবহার করবে, তুমি কি পরিবর্তন করবে নিজেকে, তুমি কি পরিবর্তন করবে নিজের হেবিট গুলোকে,

এই জীবন নামের কারখানার মধ্যে নিজেকে আর কত ধোঁকা দিবেন, নিজেকে এই ভাবে আর কত শেষ করবেন, আর কত অবহেলা করবেন, আর কত নিজের মনকে পালতু সময়ে নষ্ট করবেন, ভাই এই ভাবে আর কত নিজে কে ধোঁকা দিবেন, ভাই আর কত এই ৫ মিনিটের কথা বলে ঘন্টার পর ঘন্টা পালতু সময়ে নষ্ট করবেন।

ভাই আর কত আপনার মনকে অন্য জায়গায় রাখবেন, ভাই এই ভাবে আর কত দিন চলবে সময়, আপনার কাছে কি এই সময় গুলোর কোনো মূল্য নেই, আপনার কাছে কি এই সময় গুলো কে কাজে লাগা নোর কোনো কিছু নেই,

তুমি কি পারবে না, তোমার মন কে তুমি নিজে কন্ট্রোল করতে, তুমি কি পারবে না, তোমার মাইন্ডকে তুমি নিজে কন্ট্রোল করে রাখতে, তুমি কি পারবে না, তোমার সময় গুলো কে, পালতু কাজে না ব্যবহার করতে, তুমি কি পারবে না, তোমার কষ্ট গুলো কে, ঠিক করতে, তুমি কি পারবে না, তোমার বড় বড় আসা গুলো কে, সাকসেসফুল করতে, তুমি কি পারবে না, যে কোম্পানি থেকে তোমাকে বাহির করে দিয়ে চিলো, এমন একটি বড় কোম্পানি গড়ে তুলে তাদের কে দেখিয়ে দিতে, বল তুমি কি পারবে পারবে,

ভাই তুমি কি তোমার মত করে সব সময় চলতে পারবে, তোমান মন মত কি জীবনকে সব সময় চলাতে পারবে। তোমার নিজের ইচ্ছা মত কি, তোমার জীবন কে গড়তে পারবে। তোমার মনে যা চায় তুমি কি তাই করবে, তোমার মন যদি বলে, ১০ মিনিট সোশাল মিডিয়া তে টাইম পাস, করবো, তোমার মন ১০ মিনিটের কথা বলে, ঘন্টার পর ঘন্টা টাইম লস করতেছে তোমার এই মন, তুমি কি পারবে না, তোমার এই মনকে কন্ট্রোল করতে।

আচ্ছা ভাই বন্ধু বড় ভাই, জীবন টি আপনার, সময় গুলো আপনার, মন টি আপনার, সব কিছু আপনার, তো সব কিছু তোমার, তাহলে তুমি কেনো অন্য জনের গোলামি করবে, তুমি কেনো, ঘন্টার পর ঘন্টা এই মোবাইলের পিচনে টাইম লস করবে, এই মোবাইল তোমাকে কেনো চালাবে, এই গেইম কেনো তোমার মাইন্ডকে কন্ট্রোল করবে? আছে কি তোমার কাছে এই সব গুলোর কথার প্রশ্নে উক্তর, আমি জানি তোমার কাছে সব কথার উক্তর আছে, একটু ভাবো আর কত অবহেলিত করবে তোমার জীবন নিয়ে, আর বন্ধু আর কত ভাই, আর কত বড় ভাই?

আমি কি পারবো এই সময় গুলো কে কাজে লাগিয়ে বড় কিছু করতে, আমি কি পারবো এমন একটি বড় বিজনেস গড়ে তুলতে, আমি কি পারবো এই সুন্দরি মেয়েকে বিয়ে করতে, আমি কি পারবো অপমানের জবাব দিতে, আমি কি পারবো আমার মনের ইচ্ছা গুলো কে পূরণ করতে। হ্যাঁ তুমিই পারবে!

কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করে, অবশ্যই আমাকে জনাও, ধন্যবাদ, তুমি কি পারবে?

Post a Comment

0 Comments